চট্টগ্রামে বেশি দামে আলু বিক্রি করায় ১০ আড়ৎকে জরিমানা

37
চট্টগ্রামে বেশি দামে আলু বিক্রি করায় ১০ আড়ৎকে জরিমানা
সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে আলু বিক্রির অভিযোগে চট্টগ্রামে ১০ আড়ৎদারকে জরিমানা করেছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার নগরীর রেয়াজউদ্দিন বাজারে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক এ অভিযান পরিচালনা করেন। -বিডিনিউজ

তিনি বলেন, আলুর বাজার স্থিতিশীল রাখতে সরকার পাইকারিতে প্রতিকেজি ৩০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা তা অমান্য করে ৪০ থেকে ৪২ টাকা দরে আলু বিক্রি করছে। যার প্রভাব পড়ছে ভোক্তাদের ওপর।

“যারা আলু কেনেন তাদেরকে কোনো রশিদ দিচ্ছি না। খুচরা ব্যবসায়ীরাও রশিদ না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন।

অভিযানে ৪০-৪২ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি এবং বিক্রি রশিদ দেখাতে না পারায় চট্টগ্রামের রেয়াজউদ্দিন বাজারের কুমিল্লা ট্রেডার্স, কুসুমপুরা বাণিজ্যালয়, রফরফ ট্রেডার্স, জননী ট্রেডার্স, মক্কা বাণিজ্যালয়, আবু তৈয়ব ট্রেডার্স, দাউদকান্দি বাণিজ্যালয়, শাহাবউদ্দিন ট্রেডার্স, আশীষ হাওলাদার ট্রেডার্সকে মোট এক লাখ ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বাজার স্থিতিশীল রাখতে খুচরা বাজারে ৩৫ এবং পাইকারিতে ৩০ টাকা আলুর দর ঠিক করে দিয়েছে সরকার।

এছাড়া কোল্ড স্টোরেজ পর্যায়ে প্রতি কেজি আলু ২৭ টাকা এবং পাইকারিতে ৩০ টাকা কেজি বেঁধে দিয়ে মঙ্গলবার দাম পুনঃনির্ধারণ করে দিয়েছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর।

সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সভা করে আলুর দাম পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে বলে গত ২০ অক্টোবর অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

আরো পড়ুন: একনেকে ৫১৮৯ কোটি টাকার ৩ প্রকল্পের অনুমোদন

বাজারে আলুর দাম অস্বাভবিকভাবে বেড়ে যাওয়ার পর গত ৭ অক্টোবর কৃষি বিপণন অধিদপ্তর কোল্ড স্টোরেজ পর্যায়ে প্রতি কেজি আলু ২৩ টাকা, পাইকারীতে ২৫ টাকা এবং খুচরায় দাম ৩০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছিল।

কিন্তু সেই দামে কেউ আলু বিক্রি করছিল না। এক কেজি আলু কিনতে খরচ হচ্ছিল ৫০ টাকা। এরপর সরকারের পক্ষ থেকে আরও পাঁচ টাকা বাড়িয়ে দেওয়া হয়।

চস/স