অপরাধীদের স্থান হবে না কমিটিতে : আ জ ম নাছির

নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, দলীয় সভানেত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী দলের কোনো স্তরের কমিটিতে অপরাধী ও নৈতিকতা বিবর্জিত কোনো ব্যক্তির স্থান হবে না।

রোববার নগরীর ২ নম্বর জালালাবাদ ওয়ার্ডের তিন ইউনিটের কার্যকরী কমিটির সভায় তিনি একথা বলেন।

নাছির বলেন, “দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্পষ্ট ঘোষণা অনুযায়ী সংগঠনের কোন স্তরেই অপরাধী এবং নীতি নৈতিকতা বিবর্জিত কোন ব্যক্তির স্থান হবে না। এ ধরনের ব্যক্তি ইতোমধ্যে যারা দলে ঢুকে গেছেন, তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে যথাযথ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। যতবড় নেতাই হোন না কেন কেউ যদি অপরাধী ও সমাজবিরোধীদের সাথে উঠাবসা বা কোন ধরনের সম্পর্ক রাখেন তাকেও কোনোভাবে ছাড় দেওয়া হবে না।”

কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগেই সংগঠনকে গুছিয়ে ফেলার কেন্দ্রীয় নির্দেশনা থাকার কথাও জানান তিনি। নাছির আরও বলেন, “চট্টগ্রাম মহানগরের মেয়াদও উত্তীর্ণ হয়েছে। থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিট পর্যায়ের কমিটিগুলোর সম্মেলন কোথাও কোথাও এক যুগেরও বেশি মেয়াদ উত্তীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। তাই কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী যে সম্মেলনগুলো এখন পর্যন্ত হয়নি তা যে কোনভাবেই করে ফেলতে হবে। এছাড়াও মৃত্যুজনিত কারণে মহানগর, থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিট পর্যায়ে অনেক পথ শূন্য হয়ে আছে। এই পথগুলো সতকর্তার সাথে যোগ্য ব্যক্তিদের দ্বারা পূর্ণ করা হবে।”

আগামী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানান সাবেক মেয়র নাছির। নগর কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, “দলীয় আদর্শের প্রতি আনুগত্য, শৃঙ্খলা ও ঐক্য সুপ্রতিষ্ঠিত হলে কোন শক্তি আওয়ামী লীগকে রুখতে পারবে না।”

নগর আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও আসন্ন সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, “মহানগর আওয়ামী লীগের মধ্যে আমরা যারা নেতা তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা থাকতে পারে, মতভিন্নতাও থাকতে পারে। কিন্তু কর্মীদের মধ্যে কোন বিভেদ নাই। তারা মনে প্রাণে দলীয় ঐক্য সুসংহত করতে চান। আমি মনে করি এই সচেতন কর্মীরাই দলের মূল শক্তি।”

রেজাউল বলেন, “চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা এর আগে মেয়র হয়েছেন। কিন্তু কখনো তাদের নৌকা প্রতীক ছিল না। এবারই প্রথম মেয়র নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা প্রতীক দিয়েছেন। তাই মেয়র পদে আমি ব্যক্তি বড় কথা নয়, নৌকা প্রতীকই সবচেয়ে বড় প্রতিপাদ্য বিষয়। কারণ এই প্রতীক স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, মাটি ও মানুষের প্রতীক। তাই নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে প্রতিটি নেতাকর্মীর দায়বদ্ধতা রয়েছে।”

২ নম্বর জালালাবাদ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আওতাধীন এ ইউনিটের সভাপতি মো. ইব্রাহীম, বি ইউনিটের সভাপতি নুরুল আলম নুরু, সি ইউনিটের সভাপতি লোকমান হাকিম কুতুবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কার্যকরী কমিটির সভায় বক্তব্য রাখেন নগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য সফর আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মশিউর রহমান চৌধুরী, মোহাম্মদ হোসেন, দিদারুল আলম চৌধুরী প্রমুখ।

চস/আজহার

শেয়ার করুন

The Post Viewed By: 29 People

Chattogram Somoy

চট্টগ্রাম থেকে পরিচালিত চট্টগ্রাম সময় একটি আধুনিক নিউজ পোর্টাল। ২৪ ঘন্টা খবরের সন্ধানে ছুটে চলা একদল সংবাদদাতা নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০১৯ এর জুলাইয়ে। কোনো একটা নির্দিষ্ট দিক নয়, চট্টগ্রাম সময় কাজ করছে প্রতিটা দিক নিয়ে। আমাদের ভবিষ্যৎ পথচলায় আপনাদের সাথী হিসেবে পেতে চাই।