করোনার আতঙ্কের পরও সাত দিনে ১০০ কোটির ক্লাবে ‘বাঘি-৩’

টাইগার শ্রফ অভিনীত বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় সিনেমা ফ্র্যাঞ্চাইজি ‘বাঘি’ সিনেমা। ২০১৬ সালে মুক্তি পায়
ছবিটির প্রথম কিস্তি। সেখানে টাইগার শ্রফের সঙ্গে প্রথমবার জুটি বেধে বাজিমাত করে দেন শ্রদ্ধা কাপুর। ৪৫ কোটি রুপি বাজেটের এই সিনেমা বিশ্বব্যাপী আয় করে ১২৬ কোটি রুপি।

সেই সাফল্যের পর সিনেমাটির সিক্যুয়েল ‘বাঘি টু’ নির্মিত হয় ২০১৮ সালের ৩০ মার্চ। সেখানে টাইগারের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করেন তার কথিত প্রেমিকা দিশা পাটানি। আহমেদ খান পরিচালিত এ সিনেমাটিও প্রযোজনা করেন সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা। এই অ্যাকশন এন্টারটেইনারটি ‘বাঘি’র রেকর্ড ভেঙে দেয়। মুক্তির মাত্র ছয় দিনেই ১০০ কোটির মাইলফলক স্পর্শ করে ছবিটি।

আরো পড়ুন: বিয়ের খবরে চটে গেলেন আনুশকা

সেই ধারাবাহিকতায় ৬ মার্চ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে এর তৃতীয় কিস্তি ‘বাঘি-৩’। বিশ্বে এখন করোনাভাইরাস আতঙ্ক বিরাজ করছে। ভারতেও করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মিলেছে। এর মধ্যেই ভারতে সাড়ে চার হাজার পর্দায় এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের প্রায় ১১শ’ পর্দায় মুক্তি পেয়েছে এই সিনেমা। আর সাফল্য রীতিমত ঈর্ষণীয়।

‘বাঘি-৩’ সিনেমার বাজেট প্রায় ৮৫ কোটি রুপি। করোনাভাইরাসের আতঙ্ককে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে ভালো ব্যবসা করছে সিনেমাটি। মুক্তির প্রথম সপ্তাহে আয় করে নিয়েছে ৯০ কোটি ৬৭ লাখ রুপি। এই হিসেবটা শুধু ভারতের হলগুলোতে। ১৩ মার্চ সিনেমা বাণিজ্য বিশ্লেষক তারান আদার্শ এক টুইট বার্তায় এই তথ্য জানান।

ধারণা করা হচ্ছে বিশ্বের নানা দেশের আয় মিলে ‘বাঘি ৩’ ছাড়িয়ে গেছে ১০০ কোটির আয়।

‘বাঘি-৩’ সিনেমার গল্প রনি ও বিক্রম দুই ভাইকে নিয়ে। ছোটবেলা থেকেই বিক্রমের বিপদে এগিয়ে আসে রনি। এক সময় কাজের প্রয়োজনে বিদেশ যেতে হয় বিক্রমকে। কিন্তু সেখানে গিয়ে অপহরণ হয় সে। এরপর ভাইকে উদ্ধারের মিশনে নেমে পড়ে রনি। একা পুরো দেশের বিরুদ্ধে লড়াই করে। এতে রনি চরিত্রে টাইগার ও বিক্রম চরিত্রে অভনয় করেছেন রিতেশ।

সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা প্রযোজিত বাঘি-থ্রি পরিচালনা করেছেন আহমেদ খান। এর বিভিন্ন চরিত্রে আরো অভিনয় করেছেন- শ্রদ্ধা কাপুর, অঙ্কিতা লোখান্ডে, প্রমুখ।

চস/আজহার

শেয়ার করুন

The Post Viewed By: 117 People

Chattogram Somoy

চট্টগ্রাম থেকে পরিচালিত চট্টগ্রাম সময় একটি আধুনিক নিউজ পোর্টাল। ২৪ ঘন্টা খবরের সন্ধানে ছুটে চলা একদল সংবাদদাতা নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০১৯ এর জুলাইয়ে। কোনো একটা নির্দিষ্ট দিক নয়, চট্টগ্রাম সময় কাজ করছে প্রতিটা দিক নিয়ে। আমাদের ভবিষ্যৎ পথচলায় আপনাদের সাথী হিসেবে পেতে চাই।