সাত মাস পর খুলল মসজিদুল হারাম

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে প্রায় সাত মাস বন্ধ থাকার পর ওমরাহযাত্রীদের জন্য সীমিত পরিসরে খুললো মক্কার দুয়ার। আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ওমরাহ পালনকারীদের প্রথম দলটির জন্য রোববার স্থানীয় সময় সকাল ৬টায় মক্কার মসজিদুল হারাম খুলে দেওয়া হয়।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত মার্চে ওমরাহ কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় সৌদি আরব সরকার। মহামারীর কারণে এবার মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় সমাবেশ হজও সীমিত আকারে পালিত হয়েছে।

এমনিতে বছরের যে কোনো সময় মুসলমানরা ওমরাহ করতে মক্কা ও মদিনায় যেতে পারেন। গতবছর সব মিলিয়ে এক কোটি ৯০ লাখ মানুষ ওমরাহ পালন করেন। আর প্রতিবছর বিভিন্ন দেশের ৩০ লাখ মানুষ কোরবানির ঈদের আগের দিন হজ করার সুযোগ পেলেও এবার সৌদি আরবে বসবাসরত মাত্র কয়েক হাজার মুসলমান সে সুযোগ পেয়েছেন।

আরব নিউজ লিখেছে, ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ওমরাহযাত্রীদের ক্ষেত্রেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে কঠোরভাবে। মসজিদুল হারামের প্রবেশ পথে এবং ভেতরে বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে থার্মাল ক্যামেরা, যাতে নিয়মিত তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করে প্রয়োজনে জরুরি সতর্কতা জারি করা যায়। সৌদি সরকার জানিয়েছে, তিনটি ধাপে ওমরাহ কার্যক্রম চালুর পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। প্রথম ধাপে শুধু সৌদি আরবের অবস্থানরতরাই সুযোগ পাচ্ছেন। ওমরাহর অ্যাপের মাধ্যমে সৌদি হজ মন্ত্রণালয়ে আবেদন করতে হয়েছে তাদের।

এমনিতে আগে দৈনিক ২০ হাজার জনকে ওমরাহ করার অনুমতি দেওয়া হলেও এখন এর ৩০ শতাংশ, অর্থাৎ এক দিনে ছয় হাজার জন স্বাস্থ্যবিধি মেনে ওমরাহ করার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে। দ্বিতীয় ধাপে ১৮ অক্টোবর থেকে তা বাড়িয়ে একদিনে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার জনকে ওমরাহর জন্য মসজিদুল হারামে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে।

তৃতীয় ধাপে ১ নভেম্বর থেকে সৌদি আরবে অবস্থান করা এবং বিদেশ থেকে আসা ওমরাহযাত্রীদের মক্কার মসজিদুল হারামে ঢুকতে দেওয়া হবে। তখন প্রতিদিন ২০ হাজার মানুষ ওমরাহ করার সুযোগ পাবেন।

সৌদি আরবে রোববার পর্যন্ত ৩ লাখ ৩৫ হাজারের বেশি মানুষের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৪ হাজার ৮৫০ জনের।

চস/আজহার

শেয়ার করুন

The Post Viewed By: 37 People

Chattogram Somoy

চট্টগ্রাম থেকে পরিচালিত চট্টগ্রাম সময় একটি আধুনিক নিউজ পোর্টাল। ২৪ ঘন্টা খবরের সন্ধানে ছুটে চলা একদল সংবাদদাতা নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০১৯ এর জুলাইয়ে। কোনো একটা নির্দিষ্ট দিক নয়, চট্টগ্রাম সময় কাজ করছে প্রতিটা দিক নিয়ে। আমাদের ভবিষ্যৎ পথচলায় আপনাদের সাথী হিসেবে পেতে চাই।