বাসন্তী নিবাস

৭১ টাকায় ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা ছাত্রীদের থাকতে দিবে বিদ্যানন্দ

মেহেনাজ পারভীন, এসএসসি এবং এইচএসসিতে গোল্ডেন এ+ পেয়েছে। বাবা মফস্বলের একটা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন, বয়সের ভারে নুইয়ে পরা মানুষটা সন্তানদের লেখাপড়া শেখাতে গাধার খাটুনি খেটে গেছেন সারাটা জীবন। মেয়েরা লেখাপড়া শিখবে, বিশ্ববিদ্যালয় পার হয়ে বড় চাকরি করবে ; শেষ বয়সে এটাই হয়তো গর্ব করে বলবেন। অন্য সন্তানের মত মেহেনাজ তাঁকে নিরাশ করেনি, প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকেই ক্লাসে প্রথম; এসএসসি এবং এইচএসসিতে সব বিষয়ে জিপিএ ৫ !

এইচএসসি পরীক্ষার পরপরই প্রস্তুতি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি যুদ্ধের। অনেকেই কোচিং করার কথা বললেও আর্থিক সংকট আর থাকার জায়গার অভাবে কোচিং করা হয়ে ওঠেনি। বাসায় বসে বসে বইয়ের প্রতিটা লাইন পড়ে দেখে বারবার; একটাই ভরসা ছিলো কোচিং করার জন্য কয়েক মাসের নিরাপদ আবাসন না পেলেও ভর্তির সময়কালে বাবা ঠিকই একটা রাত থাকবার জায়গা মেনেজ করতে পারবেন।

সেই জায়গাটা মেনেজ করতে পারেননি বাবা, মেয়েকে নিয়ে কোথায় থাকবেন সেটা বের করতে পারেননি তিনি। ছেলে হলে হয়তো কোন মসজিদে বা ফাঁকা জায়গাতে কাটিয়ে দিতে পারতেন একটা রাত!

মেহেনাজ এখন স্থানীয় ডিগ্রি কলেজে বিএসসি পড়ছেন। পূরণ হয়নি তার বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ইচ্ছে। বাবাকে হতাশ দেখায় একটা রাতের নিরাপদ আশ্রয় দিতে না পারার হতাশায়!

আমাদের আশেপাশে এমন অনেক মেহেনাজ আছেন, যাঁদের স্বপ্নগুলো একটা নিরাপদ আবাসনের অভাবে হতাশায় ডুবতে থাকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে। এ সকল মানুষদের স্বপ্ন পূরণের জন্য এবার এগিয়ে আসছে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন। গত কয়েক মাস ধরে কাজ করে চলেছে এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটি।

রাজধানীতে চাকুরী কিংবা ভর্তি পরীক্ষা অথবা পেশাগত কাজে আসা নারীদের জন্য একটি আবাসস্থান নির্মাণ করছে বিদ্যানন্দ ফাউন্ডেশন, যার নাম দেয়া হয়েছে বাসন্তী নিবাস।

বাসন্তী নিবাস  এ ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসা নারীরা ৭১ টাকার বিনিময়ে থাকতে পারবেন দুই রাত- বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা কলেজের পরীক্ষার আগের রাত এবং পরীক্ষার দিনের রাত। আর চাকরির পরিক্ষার্থীরা ২৯৯ টাকায় থাকতে পারবে এক রাত (সর্বোচ্চ দুই রাত থাকতে পারবে)।


৭১ টাকার সুবিধা পেতে ঢাকার বাইরে থেকে আসা শিক্ষার্থী প্রমাণে পরীক্ষার প্রবেশ পত্র এবং বাসের টিকেট দেখাতে হবে।
আর সাধারণ রেট হচ্ছে ৮৮০ টাকা। কিন্তু এ ক্ষেত্রে অবশ্যই বাসের টিকিট দেখাতে হবে।

থাকার পাশাপাশি নাস্তাও পাওয়া যাবে বাসন্তী নিবাসে। আর সুযোগ সুবিধার মধ্যে রয়েছে ওয়াইফাই, ক্যাপসুল বেড (দেশে এই প্রথম জাপানের মডেলে তৈরি বেড), অটোমেটেড ভেন্ডিং মেশিন।
উল্লেখ্য এখানের সকল কর্মকর্তা, কর্মচারী নারী হবে। আর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গেইটে সিকিউরিটি ক্যামেরা এবং এক্সেস কন্ট্রোলও বসানো হবে।

ঠিকানা: বাসন্তী নিবাস, বাসাঃ ১৩ (তৃতীয় তলা) রোডঃ ২/বি , পল্লবী আবাসিক এলাকা , মিরপুর সাড়ে এগারো , ঢাকা

চস/সোহাগ

শেয়ার করুন

The Post Viewed By: 370 People

Chattogram Somoy

চট্টগ্রাম থেকে পরিচালিত চট্টগ্রাম সময় একটি আধুনিক নিউজ পোর্টাল। ২৪ ঘন্টা খবরের সন্ধানে ছুটে চলা একদল সংবাদদাতা নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০১৯ এর জুলাইয়ে। কোনো একটা নির্দিষ্ট দিক নয়, চট্টগ্রাম সময় কাজ করছে প্রতিটা দিক নিয়ে। আমাদের ভবিষ্যৎ পথচলায় আপনাদের সাথী হিসেবে পেতে চাই।