তুরস্ক নিষেধাজ্ঞাকে পরোয়া করে না: এরদোয়ান

122

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান বলেছেন, সিরিয়ার তুর্কি সীমান্ত এলাকায় সামরিক অভিযান বন্ধ করতে অনেক চাপ এসেছিল। কিন্তু আঙ্কারা নিষেধাজ্ঞার ভয়ে উদ্বিগ্ন নয়। তুরস্ক এসবের পরোয়া করে না। সীমান্তে সন্ত্রাসের করিডোর উৎখাতে আঙ্কারা বদ্ধপরিকর। মঙ্গলবার আজারবাইজানের বাকুতে তার্কিক কাউন্সিলের সপ্তম সম্মেলন শেষে ফেরার পথে তিনি এসব কথা বলেন।
রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান

পশ্চিমা দেশগুলোর প্রতি ইঙ্গিত করে এরদোয়ান বলেন, তারা অভিযান বন্ধে আমাদের ওপর চাপ দিচ্ছে। নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছে। কিন্তু আমাদের লক্ষ্য পরিষ্কার। আমরা কোনও নিষেধাজ্ঞা নিয়ে উদ্বিগ্ন নই।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকেই ইতোমধ্যেই তুরস্কের প্রতি সিরিয়ার কুর্দি বিদ্রোহীদের সঙ্গে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানানো হয়েছে। তবে ওই আহ্বান প্রত্যাখ্যান করে এরদোয়ান বলেন, আঙ্কারা সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে একই টেবিলে বসবে না।

এরদোয়ান বলেন, সিরিয়া সীমান্তে তুরস্কের চলমান অপারেশন পিস স্প্রিং সফলভাবে পরিচালিত হচ্ছে। ইতোমধ্যেই এ অভিযানে ৫৫৬ সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে। এছাড়া তুর্কি সেনাবাহিনীর চার সদস্য এবং সিরিয়ান ন্যাশনাল আর্মির ৩২ সদস্য শহীদ হয়েছেন।

২০১৯ সালের ৯ অক্টোবর তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে ‘অপারেশন পিস স্প্রিং’ নামে সামরিক অভিযান শুরু করে তুরস্ক। এ অভিযানের মাধ্যমে অঞ্চলটি থেকে আইএস জঙ্গি ও কুর্দি বিদ্রোহীদের বিতাড়িত করে সেখানে একটি সেফ জোন প্রতিষ্ঠা করতে আগ্রহী আঙ্কারা। এ সেফ জোনে দীর্ঘদিন ধরে তুরস্কে বসবাসরত সিরীয় শরণার্থীদের বসবাসের ব্যবস্থা করতে চায় আঙ্কারা। তুর্কি অভিযানের আগে সেখান থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে অভিযান শুরুর পর তুরস্কের দুইজন মন্ত্রী এবং তিনজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র।

ইউরোপীয় ইউনিয়নও (ইইউ) সিরিয়ায় তুরস্কের সামরিক হস্তক্ষেপের নিন্দা জানিয়েছে। গত সোমবার ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এক বৈঠকের পর আঙ্কারার ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিষয়ে আলোচনা হয়। অবশ্য এতে একমত পারেনি ইউরোপীয় দেশগুলো। তবে কয়েকটি সদস্য দেশের আঙ্কারার কাছে অস্ত্র রফতানির লাইসেন্স স্থগিতের সিদ্ধান্ত মনে করিয়ে দিয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

জার্মান সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে জানিয়েছে, এই সপ্তাহে ইইউ সদস্য দেশগুলোর প্রতিনিধিরা বৈঠকে বসে তাদের অবস্থান পর্যালোচনা ও সমন্বয় করবে। বর্তমান পরিস্থিতিতে করণীয় ঠিক করতে আইএসবিরোধী লড়াইয়ের আন্তর্জাতিক জোটেরও একটি মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক আহ্বানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইইউ। লুক্সেমবার্গে ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের আলোচ্যসূচির শীর্ষে ছিলো সিরিয়ায় তুরস্কের অভিযান। সোমবার ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের পর যৌথ বিবৃতিতে তুরস্কের সামরিক কার্যক্রমের নিন্দা জানানো হয়। এই অভিযান পুরো অঞ্চলের স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা ক্ষুণ্ন করছে আর বেসামরিক মানুষের দুর্ভোগ ও বাস্তুহারা হওয়ার আশঙ্কা বাড়াচ্ছে এবং মানবিক সহায়তা প্রবেশে বাধা দিচ্ছে বলে মনে করে ইইউ।

সিরিয়ায় তুর্কি অভিযান শুরুর জেরে জার্মানি, ফ্রান্সের পাশাপাশি সুইডেন, ফিনল্যান্ড ও নেদারল্যান্ড তুরস্কের কাছে অস্ত্র রফতানি স্থগিত করেছে। তবে আঙ্কারা বলছে, তাদের ওপর এর প্রভাব খুবই সামান্য। সুইডেন চায় তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করুক ইইউ। তবে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস বলেন, তুরস্কের সঙ্গে আলোচনায় থাকা জরুরি। এতে সফলতা না আসলে অন্য ব্যবস্থার জন্য অবশ্যই প্রস্তুত থাকতে হবে। সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি, আল জাজিরা।

চস/আজহার