ঘুমন্ত অবস্থায় হাত, পা ও মুখ বেঁধে ধর্ষণ

123

হোমনা উপজেলার শ্রীমদ্দি গ্রামের এক স্বুলছাত্রীকে হাত, পা ও মুখ বেঁধে ধর্ষণের ঘটনায় হোমনা থানায় মামলা হয়েছে। ঐ ছাত্রীর মা বাদী হয়ে শুক্রবার রাতে ধর্ষক একই গ্রামের লালু মিয়ার ছেলে আবদুল মতিনকে (৬০) আসামি করে এ মামলা করেন।

থানা ও ভিকটিমের স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার সকালে হোমনা উপজেলা সদরের একটি বালিকা বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ুয়া ছাত্রী ও তার তিন বছর বয়সী ছোট ভাইকে নিজ ঘরে ঘুমিয়ে রেখে তাদের মা-বাবা ক্ষেতে কাজ করতে যান। পরে সকাল ৯টার দিকে প্রতিবেশি নানা রিকশাচালক আবদুল মতিন ঘরের দরজা খোলা দেখে ভেতরে ঢুকে। ঘুমন্ত মেয়েটিকে ওড়না দিয়ে হাত, পা ও মুখ বেঁধে ধর্ষণ করে। এ সময় ওই মেয়ের গোঙানীর শব্দ শুনে পাশের বাড়ির তার চাচাত বোন এগিয়ে এলে ধর্ষক মতিন পালিয়ে যায়। এরপর স্থানীয় মাতব্বরদের দ্বারস্থ হয়ে কোনো বিচার না পেয়ে থানায় এলে পুলিশ মামলা নেয়।

হোমনা থানার ওসি আবুল কায়েস আকন্দ জানান, ধর্ষণের ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ভিকটিমকে উদ্ধার করে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য কুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পরপরই ধর্ষক গাঁ ঢাকা দিয়েছে। আসামিকে আটক করতে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

চস/আজহার