১০ মাস পর শিষ্যদের নিয়ে অনুশীলনে জেমি ডে

29
১০ মাস পর শিষ্যদের নিয়ে অনুশীলনে জেমি ডে
অবশেষে অপেক্ষা ফুরলো তার। প্রিয় শিষ্যদের নিয়ে অনুশীলনে নামলেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের প্রধান কোচ জেমি ডে। দলের সঙ্গে সর্বশেষ অনুশীলন করার ব্যাপারটি তার কাছে ধুলোজমা স্মৃতির মতোই হয়ে ওঠার কথা। সেই জানুয়ারিতে জাতীয় দলের সঙ্গে শেষবারের মতো মাঠে নেমেছিলেন ইংলিশ এই কোচ। করোনার প্রকোপ শেষে ১০ মাস পর মিশন শুরু হলো তার।

করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার প্রথম দিকে বাংলাদেশেই ছিলেন জেমি ডে। অপেক্ষা করছিলেন অবস্থা ভালো হওয়ার। কিন্তু অবস্থা ভালো হয়নি, উল্টো সব কিছু স্থবির হয়ে পড়ে। করোনার কারণে বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ বাছাইপর্বে আফগানিস্তান ও কাতারের বিপক্ষের ম্যাচ স্থগিত হয়ে যায়।

জাতীয় দলে দায়িত্ব না থাকায় দেশে ফিরে যান জেমি ডে। এরপর ক্রমেই অবস্থা খারাপ হয়েছে। বিশ্বের প্রায় সব দেশেই জারি হয়েছে লকডাউন, একই অবস্থা ছিল বাংলাদেশেও। গত আগস্টে জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু করেও তা চালু রাখা যায়নি। বেশ কয়েকজন ফুটবলার করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় ক্যাম্প স্থগিত করা হয়। তাই জেমি ডেরও বাংলাদেশে ফেরার তাড়া ছিল না।

অবস্থার উন্নতি হওয়ায় জাতীয় দলের অনুশীলন শুরুর সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। গত ২৪ অক্টোবর থেকে শুরু হয় ক্যাম্প। ক্যাম্পে যোগ দিতে ঢাকা এসেছেন জেমি ডে। ঢাকা ফিরে আগের মতো কিছুই পাননি তিনি। করোনার ধাক্কায় বদলে গেছে সব। ৭ মাস পর গত বৃহস্পতিবার ঢাকা ফেরা জেমি ডেও কিছুটা বদলে গেছেন।

ওজন বেড়েছে তার, মাথার চুল নেমে এসেছে কাঁধ পর্যন্ত। তবে পরিবেশ বা নিজের কিছুটা বদলে চিন্তা নেই তার। দীর্ঘদিন পর শিষ্যদের সঙ্গে দেখা হওয়ায় উচ্ছ্বসিত ইংলিশ এই কোচ। তিনি বলেন, ‘কবে মাঠে ফিরতে পারব, এ নিয়ে অপেক্ষায় ছিলাম। অনেকদিন পর মাঠে ফিরলাম, ভালো লাগছে। খেলোয়াড়রাও খুশি।’

আরো পড়ুন: সিটিতেই থাকতে চান গার্দিওলা

করোনাকালে নিজের মতো করে ফিটনেস নিয়ে কাজ করেছেন ফুটবলার। জেমি ডে এসে ফুটবলারদের যে অবস্থায় পেয়েছেন, তাতে কোচকে সন্তুষ্টই মনে হয়েছে। অবশ্য কারও কারও ফিটনেসে ঘাটতি আছে। নেপালের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচের আগে হাতে সময় থাকায় এ নিয়ে ভাবছেন না জেমি ডে।

রোববার নিজের প্রথম দিনের অনুশীলনে জামালদের কোচ বলেন, ‘গত কিছু দিন খেলোয়াড়রা অনেক পরিশ্রম করেছে। যা অনুশীলনে তাদের উন্নতি দেখে বোঝা গেছে। কিছু খেলোয়াড়ের ফিটনেস ভালো অবস্থানে আছে। কারও কারও আবার ঘাটতিও আছে। আরও কয়েক দিন সময় আছে হাতে। এর মধ্যে পুরো দলকে ভালো একটি অবস্থানে নিয়ে যেতে হবে।’

আগামী ১৩ ও ১৭ নভেম্বর নেপালের বিপক্ষে দুটি আন্তর্জাতিক প্রীতি ফুটবল ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। এ জন্য গত ২৪ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে জাতীয় দলের অনুশীলন ক্যাম্প। অনুশীলন শুরুর বেশ কয়েকদিন হয়ে গেলেও কোচিং স্টাফদের সবাই ছিলেন না।

চস/সস