সিরিজ জয়ের হাতছানি

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সতীর্থদের নিয়ে আছেন ফুরফুরে মেজাজে। উল্টো চিত্র ভারত শিবিরে কাপ্তান রোহিত শর্মার। তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে জিতে ১-০ তে এগিয়ে থাকায় বাংলাদেশ শিবিরে নির্ভার চিত্র। রোহিত শর্মার মন ভালো থাকার কোন সুযোগ নেই। গতকাল রাজকোটের সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় ম্যাচের আগে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলার সময় মেজাজ হারান তিনি। এক ভারতীয় সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছিলেন তিনি, সেই সময় হঠাৎ করে ফোন বেজে ওঠায় কথা বলা বন্ধ করে দেন ভারতীয় অধিনায়ক। তারপর কিছুক্ষণ চুপ থেকে তিনি বলেন, ‘কিপ ইওর ফোন সাইলেন্ট।’ এই সময় রোহিতের মুখে বিরক্তির ছাপও দেখা যায়। বোঝাই যাচ্ছে প্রচ- চাপে আছেন রোহিত। আবহাওয়ার চোখ রাঙানি সরিয়ে আজ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটি যদি মাঠে গড়ায় এবং তাতে রোহিত শর্মা যদি তার দলকে নিয়ে হাসতে না পারেন পুরো ‘ভারত’ ভেঙ্গে পড়বে স্বাগতিক ক্রিকেটারদের উপর। অন্যদিকে উল্লাসের হুংকারে প্রকম্পিত হবে লাল-সবুজের এই বাংলাদেশ। না হলেও ক্ষতিবৃদ্ধি হবে না, সিরিজ জেতার আরেকটি উপলক্ষ মানে তৃতীয় ম্যাচটিতো থাকছে। আজকের ম্যাচটিও শুরু হবে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায়, স্টার স্পোর্টস ও জিটিভি ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে।

অবশ্য আজকের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে চোখ রাঙাচ্ছে বৃষ্টি। ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’র প্রভাবে গতকালের মতো আজও বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে গুজরাটের রাজকোটে। সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট এসোসিয়েশন মাঠে অনুষ্ঠেয় ম্যাচটিতে বৃষ্টির প্রভাব তো থাকছেই। ব্যাটসম্যানদের জন্যেও রয়েছে সুখবর, ম্যাচটিতে হতে পারে রান বন্যা! সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট এসোসিয়েশন মাঠের পিচ বরাবরই ব্যাটিং বান্ধব। বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচেও এর ব্যতিক্রম হবে না। গ্রাউন্ড স্টাফরা বলছেন, খেলা হলে প্রচুর রান হবে এই পিচে। তবে বেশি বৃষ্টি হলে পরিস্থিতি পাল্টে যেতে পারে পুরোপুরি। বর্তমানে পিচটি কাভার দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে বৃষ্টির আশঙ্কায়। সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট এসোসিয়েশনের এক কর্মকর্তা আশাবাদী ম্যাচ আয়োজন নিয়ে, ‘আজ সকালের দিকে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে দিনের শেষভাগে তেমন সম্ভাবনা নেই। আমরা আশাবাদী ম্যাচটি আয়োজন নিয়ে।’ রাজকোটের এই মাঠের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা খুবই কার্যকরি। তাই বৃষ্টি নামলেও মাঠ শুকিয়ে কার্টেল ওভারে খেলা সম্ভব বলে জানালেন এই কর্মকর্তা।

২০১৩ সালে এই মাঠে হয়েছিল প্রথম টি-টোয়েন্টি। অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ২০২ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ভারত ৬ উইকেটে জিতেছিল দুই বল বাকি থাকতে।

চার বছর পর ২০১৭ সালে নিউজিল্যান্ড আগে ব্যাট করে কলিন মানরোর সেঞ্চুরিতে ২ উইকেটে তুলেছিল ১৯৬ রান। জবাবে ভারত করেছিল ৭ উইকেটে ১৫৬। এই মাঠে হওয়া দুটি ওয়ানডের চার ইনিংসেও আড়াইশর নিচে রান হয়নি। এর মধ্যে এক ম্যাচের দুই ইনিংসেই ছাড়িয়েছিল তিনশ। রান উঠেছে দুটি টেস্টেও। আজ এই মাঠেই সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে মুখোমুখি হবে ভারত ও বাংলাদেশ। গতকাল সংবাদ সম্মেলনে উইকেট নিয়ে ভারতের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক রোহিত শর্মা বলেন, ‘উইকেট ভালোই দেখাচ্ছে। রাজকোট সব সময় ব্যাট করার জন্য ভালো ট্র্যাক। বোলারদেরও কিছুটা সহায়তা দেয়। এটা ভালো উইকেটই হবে। আমি নিশ্চিত যে দিল্লির চেয়ে ভালো হবে।’ একই সুর বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর কণ্ঠেও, ‘আমি জানি না এখানকার উইকেট কেমন হবে। তবে গড় রান যেটা বলে ১৭০-১৮০ রানের মতো স্কোর হয়ে থাকে। মানে অনেক বড় স্কোর হয়ে থাকে। আশা করি, উইকেট হয়তো ভালো হবে।’

চস/আজহার

শেয়ার করুন

The Post Viewed By: 75 People

Chattogram Somoy

চট্টগ্রাম থেকে পরিচালিত চট্টগ্রাম সময় একটি আধুনিক নিউজ পোর্টাল। ২৪ ঘন্টা খবরের সন্ধানে ছুটে চলা একদল সংবাদদাতা নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০১৯ এর জুলাইয়ে। কোনো একটা নির্দিষ্ট দিক নয়, চট্টগ্রাম সময় কাজ করছে প্রতিটা দিক নিয়ে। আমাদের ভবিষ্যৎ পথচলায় আপনাদের সাথী হিসেবে পেতে চাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *