ক্যারিয়ারের এক যুগে কোহলি

63

১২ বছর আগে এই দিনেই ভারতীয় ক্রিকেটে শুরু হয়েছিল বিরাটের পথচলা। ২০০৮ সালের মার্চে ভারতকে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ে নেতৃত্বে দেন তিনি। সেই বছরের আগস্টে জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক। শুরুটা ভালো না হলেও এরপর গত এক যুগে শুধুই এগিয়ে যাওয়ার গল্প।

ডাম্বুলায় অভিষেকে অবশ্য রঙ ছড়াতে পারেননি। ক্রিজে ছিলেন মাত্র ৩৩ মিনিট! ২২ বলে ১২ রান তুলে নুয়ান কুলাসেকারার শিকার! ম্যাচটাতে ভারতও তেমন কিছু করতে পারেনি। মাত্র ১৪৬ রানে অলআউট। এরপর ৯১ বল বাকি হাতে রেখেই শ্রীলঙ্কা দু’ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে শ্রীলঙ্কা।

১৪ ম্যাচ পরে এসে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন বিরাট। প্রতিপক্ষ ছিল সেই শ্রীলঙ্কা! ২০০৯ সালে ইডেন গার্ডেন্সে খেলেন ১০৯ রানের দেখার মতো এক ইনিংস! তারপর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি। একের পর এক সাফল্য যোগ হয়েছে তার নামের পাশে। ধারণা করা হচ্ছে শচীনকে টপকে তিনিই উঠে যাবেন রেকর্ডের চূড়ায়।

ভারতীয় এই অধিনায়কের ওয়ানডেতে ৪৩ সেঞ্চুরি! টেস্টে ২৭টি! ৮৬টি টেস্টে তুলেছেন ৭,২৪০ রান!
২৪৮টি ওয়ানডে খেলে করেছেন ১১,৮৬৭ রান। ৮২ টি-টোয়েন্টিতে ২,৭৯৪! রেকর্ড তার হয়েই কথা বলছে।

নেতৃত্বেও দারুণ সফল। ২০১৪-১৫ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে মহেন্দ্র সিং ধোনি টেস্ট থেকে বিদায় নিলে অধিনায়কত্ব পেয়ে যান কোহলি। তারপর ধোনিকেই ছাড়িয়ে তিনি এখন ভারতের সফলতম টেস্ট অধিনায়ক।

কোহলির নেতৃত্বে ৫৫ টেস্টের ৩৩টিতে জিতেছে ভারত। ক্যাপ্টেন ধোনির ৬০ টেস্টে জয় ২৭টি। দেশের বাইরেও সেরা কোহলি। তার নেতৃত্বে বিদেশে ১৩ টেস্ট জিতেছে ভারত। সৌরভ গাঙ্গুলির নেতৃত্বে ভারতের বাইরে জয় ছিল ১১ টেস্টে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোহলির ১২ বছর পূর্তিতে অভিনন্দন জানাল ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। তারা লিখেছে , ‘২০০৮ সালে এই দিনে তরুণ বিরাট কোহলি ভারতের জার্সিতে প্রথমবার খেলতে নেমেছিলেন! তার পরের ঘটনা ইতিহাস!’

চস/আজহার