ফিফা বর্ষসেরার সংক্ষিপ্ত তালিকায় মেসি-রোনালদো, নেই নেইমার

123
  |  বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১, ২০১৯ |  ৩:৩৫ অপরাহ্ণ
ads here

ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলার হওয়ার দৌড়ে যথারীতি আছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসি। তবে সংক্ষিপ্ত তালিকায় এবারও জায়গা হয়নি ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমারের।

ads here

ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা বুধবার ২০১৯ সালের ‘দ্য বেস্ট ফিফা মেনস প্লেয়ার’ এর জন্য নিজেদের ওয়েবসাইটে ১০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করে।

ইউভেন্তুসের হয়ে প্রথম মৌসুমটা বেশ ভালো কেটেছে রোনালদোর। দলের টানা অষ্টম সেরি আ শিরোপা জয়ে রাখেন বড় অবদান। লিগে ২১টিসহ সব প্রতিযোগিতা মিলে ক্লাবের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৮ গোল করেন পাঁচবারের বর্ষসেরা এই ফুটবলার। গত মৌসুমে সেরি আর সবচেয়ে মূল্যবান খেলোয়াড়ও নির্বাচিত হন পর্তুগিজ তারকা।

জাতীয় দলের হয়েও মৌসুমটা দারুণ কেটেছে রোনালদোর। গত মাসে তার নেতৃত্বে উয়েফা নেশন্স লিগ জিতে পর্তুগাল। সেমি-ফাইনালে দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিক করেন ৩৪ বছর বয়সী তারকা।

বরাবরের মতো গত মৌসুমটাও দারুণ কেটেছে মেসির। বার্সেলোনাকে লা লিগা জেতাতে রাখেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। কাতালান ক্লাবটির চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমি-ফাইনালে ও কোপা দেল রের ফাইনালেও ওঠাতেও বড় অবদান ছিল আর্জেন্টাইন তারকার।

দলগত সাফল্যের পাশাপাশি ব্যক্তিগত নৈপুণ্যেও গত মৌসুমটাও দুর্দান্ত কাটে মেসির। লা লিগায় সর্বোচ্চ ৩৬ গোল করে একই সঙ্গে জিতে নেন পিচিচি ট্রফি ও ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু। চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও করেন সর্বোচ্চ ১২ গোল।

তবে জাতীয় দলের হয়ে আরও একবার হতাশ হতে হয়েছে পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলারকে। কোপা আমেরিকার সেমি-ফাইনালে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের কাছে হেরে যায় আর্জেন্টিনা।

সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার হিসেবে বিবেচিত নেইমারের গত মৌসুমটাও শেষ হয়েছে হতাশায়। জানুয়ারিতে পায়ে চোট পেয়ে লম্বা সময়ের জন্য ছিটকে যান তিনি। পরে কোপা আমেরিকার জন্য জাতীয় দলে ফিরলেও আরেক দফা চোট পেয়ে এই টুর্নামেন্টও খেলা হয়নি তার। গতবারও বর্ষসেরা ফুটবলারের ১০ জনের তালিকায় ছিলেন না ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ড। সেবারও মৌসুমের শেষভাগে লম্বা সময়ের জন্য চোটের কারণে বাইরে ছিলেন নেইমার।

গতবারের বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জেতা রিয়াল মাদ্রিদের লুকা মদ্রিচের গত মৌসুমটা কেটেছে ভীষণ বাজে। ফলে সেরা দশে জায়গা হয়নি ক্রোয়াট এই মিডফিল্ডারের।

গতবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী লিভারপুলের তিন জন খেলোয়াড় আছেন এই তালিকায়-সাদিও মানে, মোহামেদ সালাহ ও ভার্জিল ভন ডাইক।

২২ গোল করে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে যৌথভাবে সর্বোচ্চ গোলদাতা হন মানে। এছাড়া সেনেগালকে আফ্রিকা নেশন্স কাপের ফাইনালে তুলতে বড় অবদান রাখেন সেনেগালের এই ফরোয়ার্ড।

২০১৮-১৯ মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলে লিভারপুলের হয়ে সর্বোচ্চ ২৯টি গোল করেন মোহামেদ সালাহ। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ২২টি গোল করে মানের সঙ্গে যৌথভাবে হন সর্বোচ্চ গোলদাতা।

আর লিভারপুলের জমাট রক্ষণের মূল ভরসা ছিলেন ভন ডাইক। খেলোয়াড়দের ভোটে গত মৌসুমে ইংল্যান্ডের সেরা ফুটবলার নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পান ডাচ এই ফুটবলার। নেদারল্যান্ডসকে উয়েফা নেশন্স লিগের ফাইনালে তুলতেও বড় অবদান রাখেন ভন ডাইক।

গত মৌসুমে পিএসজির লিগ ওয়ান শিরোপা জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল কিলিয়ান এমবাপের। ২৯ ম্যাচ খেলে লিগের সর্বোচ্চ ৩৩টি গোল করা ফরাসি এই ফরোয়ার্ড প্রত্যাশিতভাবেই আছেন এই তালিকায়। দারুণ ও ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের জন্য লিগ ওয়ানের বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জেতেন তরুণ ফরোয়ার্ড।

গত মৌসুমে আয়াক্সের হয়ে দারুণ ফুটবল খেলে আলোচনায় আসেন নেদারল্যান্ডসের মিডফিল্ডার ফ্রেংকি ডি ইয়ং। আয়াক্সের হয়ে জিতেন ডাচ ঘরোয়া লিগ ও কাপ। দলকে নিয়ে যান চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমি-ফাইনালে। দেশে বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কারও জিতেন তরুণ এই ডাচ ফুটবলার। চলতি দল-বদলে আয়াক্স ছেড়ে যোগ দেন বার্সেলোনায়।

গত মৌসুমে আয়াক্সের সাফল্যের আরেক কারিগর মাটাইস ডি লিখট। তার নেতৃত্বে ঘরোয়া ডাবল জেতে আয়াক্স। ২২ বছর পর চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমি-ফাইনালে ওঠা দলটির রক্ষণের মূল ভরসা ছিলেন ডি লিখট। গত চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেরা একাদশেও জায়গা পান ইউভেন্তুসে যোগ দেওয়া ১৯ বছর বয়সী এই ফুটবলার।

১০ জনের তালিকায় আরও আছেন টটেনহ্যাম হটস্পারের হ্যারি কেইন ও সম্প্রতি চেলসি থেকে রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেওয়া এদেন আজার।

গত ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে ২৮ ম্যাচে ১৭ গোল করার পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে পাঁচ গোল করেছিলেন ইংলিশ ফরোয়ার্ড কেইন।

মৌসুমজুড়ে দারুণ ছন্দে থাকা আজার চেলসির হয়ে জেতেন ইউরোপা লিগ। সব প্রতিযোগিতা মিলে করেন ইংলিশ ক্লাবটির পক্ষে সর্বোচ্চ গোল।

জাতীয় দলের কোচ, অধিনায়ক, বিশ্বজুড়ে ফিফা নির্বাচিত সাংবাদিক ও ফিফা ডটকমে নিবন্ধন করা ফুটবলপ্রেমীদের ভোটে বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করা হয়।

১০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা:

ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো (পর্তুগাল) – ইউভেন্তুস

ফ্রেংকি ডি ইয়ং (নেদারল্যান্ডস) – আয়াক্স/বার্সেলোনা

মাটাইস ডি লিখট (নেদারল্যান্ডস) – আয়াক্স/ইউভেন্তুস

এদেন আজার (বেলজিয়াম) – চেলসি/রিয়াল মাদ্রিদ

হ্যারি কেইন (ইংল্যান্ড) – টটেনহ্যাম হটস্পার

সাদিও মানে (সেনেগাল) – লিভারপুল

কিলিয়ান এমবাপে (ফ্রান্স) – পিএসজি

লিওনেল মেসি (আর্জেন্টিনা) – বার্সেলোনা

মোহামেদ সালাহ (মিশর) – লিভারপুল

ভার্জিল ভন ডাইক (নেদারল্যান্ডস) – লিভারপুল

পুরুষ ফুটবলের সেরা কোচ বাছাইয়েও ১০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে ফিফা। তালিকায় আছেন:

জামেল বেলমাদি – আলজেরিয়া জাতীয় দল

দিদিয়ের দেশম – ফ্রান্স জাতীয় দল

রিকার্দো গার্সিয়া– পেরু জাতীয় দল

পেপ গুয়ার্দিওলা– ম্যানচেস্টার সিটি

ইয়ুর্গেন ক্লপ – লিভারপুল

মাউরিসিও পচেত্তিনো– টটেনহ্যাম হটস্পার

ফের্নান্দো সান্তোস– পর্তুগাল জাতীয় দল

এরিক টেন হাগ – আয়াক্স

তিতে – ব্রাজিল জাতীয় দল

মার্সেলো গায়ার্দো – রিভার প্লেট

 

 

 

 

চস/আজহার

ads here