যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি পরিবারের ৬ সদস্যের লাশ উদ্ধার

72
  |  মঙ্গলবার, এপ্রিল ৬, ২০২১ |  ১১:৪৪ পূর্বাহ্ণ
ads here
বাংলাদেশি একটি পরিবারের ছয় সদস্যের লাশ যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মা, বাবা, বোন ও নানিকে হত্যার পর ওই পরিবারের দুই সন্তান আত্মহত্যা করেছেন বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে।

ads here

নিহতরা হলেন- ১৯ বছর বয়সী যমজ ভাই-বোন ফারহান তৌহিদ ও ফারবিন তৌহিদ, বড় ভাই তানভীর তৌহিদ (২১), মা আইরিন ইসলাম (৫৬), বাবা তৌহিদুল ইসলাম (৫৪), তানভীর তৌহিদের নানি আলতাফুন্নেসা (৭৭)।

স্থানীয় সময় সোমবার (৫ এপ্রিল) ভোরে টেক্সাস স্টেটের ডালাসসংলগ্ন অ্যালেন শহরের বাসা থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয় বলে পুলিশের সার্জেন্ট জন ফেলী জানান।

তিনি বলেন, সম্ভবত শনিবার নৃশংস ঘটনাটি ঘটেছে। ১৯ বছর বয়সী একজনের ফেইসবুক স্ট্যাটাস থেকে হত্যার পর আত্মহত্যার ঘটনা বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দুই ভাই হতাশায় ভুগছিলেন। পরিবারকে লজ্জা ও কষ্ট থকে মুক্তি দেওয়ার জন্য দুই ভাই সবাইকে হত্যা করে নিজেরা আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছেন বলে সুইসাইড নোটে উল্লেখ রয়েছে।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ওই পরিবারের এক বন্ধু তাদের ফোন করে পাচ্ছিলেন না। এরপর তিনি পুলিশে খবর দেন। পুলিশ ওই ঘরে ছয়জনের লাশ দেখতে পায়।

বন্দুকের গুলিতে ছয়জন মারা গেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। বাড়িটি থেকে বন্দুকও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, ঘটনার আগে ফারহান তৌহিদ ইনস্টাগ্রামে একটি দীর্ঘ ‘সুইসাইড নোট’ পোস্ট করেছেন। এতে তিনি লিখেছেন, ‘আমি নিজেকে ও আমার পরিবারকে হত্যা করেছি। ’

মর্মান্তিক ঘটনার শিকার বাংলাদেশি পরিবারটির কোনো নিকটাত্মীয় আশপাশে নেই। বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশন অব নর্থ টেক্সাস লাশ দাফনের ব্যবস্থা করছে। সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে স্থানীয় সময় বুধবার তাদের দাফন হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি: নিহত বেড়ে ২৭

জানা গেছে, প্রায় ২২ বছর আগে ডিভি ভিসায় তৌহিদুল ইসলাম আমেরিকায় যান। তৌহিদুল ইসলামের জন্ম ও বেড়ে ওঠা পুরান ঢাকায়। পরিবার নিয়ে প্রথম দুই বছর নিউইয়র্কে ছিলেন। পরে টেক্সাসে স্থানান্তর হন।

চস/স

ads here