দিবালাকে বাদ দিয়ে আর্জেন্টিনার দল ঘোষণা, ফিরলেন আগুয়েরো

31
  |  সোমবার, মে ১৭, ২০২১ |  ৪:৪৯ অপরাহ্ণ
ads here

দীর্ঘ বিরতির পর আসছে মাসে আবারও বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে মাঠে নামবে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। তার প্রায় দুই সপ্তাহ আগে দল ঘোষণা করে দিয়েছেন কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি। যে দলে ঠাঁই মিলেছে ফরোয়ার্ড সার্জিও আগুয়েরোর। তবে কপাল পুড়েছে পাওলো দিবালার। শেষ এক মৌসুমে জুভেন্তাসে প্রায় ব্রাত্য হয়ে পড়া এই ফরোয়ার্ড জায়গা পেলেন না আর্জেন্টিনা জাতীয় দলেও।

ads here

দক্ষিণ আমেরিকান অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে সর্বশেষ ম্যাচ হয়েছে সেই নভেম্বরে। এরপর গেল মার্চে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও তা থমকে যায় করোনাভাইরাসের ছোবলে। দক্ষিণ আমেরিকায় তখন করোনা মহামারির প্রভাব বেড়ে গিয়েছিল বহুগুণে। ফলে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপীয় অনেক দেশেই লাল তালিকাভুক্ত করে দেওয়া হয়েছিল দক্ষিণ আমেরিকান এসব দেশকে। সেসব দেশ থেকে ফিরলেই যেতে হতো বাধ্যতামূলক ১০ দিনের কোয়ারেন্টাইনে। ফলে প্রিমিয়ার লিগসহ অনেক লিগই ছাড়তে চায়নি খেলোয়াড়, পিছিয়ে যায় বিশ্বকাপ বাছাই।

অবশেষে সে সমস্যা কাটিয়ে আগামী জুনের শুরুতে আবারও মাঠে গড়াচ্ছে বাছাইপর্ব। আগের চার ম্যাচে তিন জয় ও এক ড্রয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে বাছাইপর্বের দ্বিতীয় স্থানে থাকা আর্জেন্টিনা আগামী ৪ জুন নিজেদের মাঠে মুখোমুখি হবে চিলির। এর চার দিন পর কলম্বিয়ার আতিথ্য নেবে আলবিসেলেস্তেরা।

সেই দুই ম্যাচের দলই ঘোষণা করেছে দলটি। চোটের কারণে গত নভেম্বরে প্যারাগুয়ে ও পেরুর বিপক্ষে খেলতে না পারা সার্জিও আগুয়েরো ফিরেছেন দলে। লিওনেল মেসি তো আছেনই, সঙ্গে আছেন ইন্টার মিলানকে ১০ বছর পর লিগ জেতানো ফরোয়ার্ড লাওতারো মার্টিনেজ। তবে আগুয়েরোর কাছে জায়গা হারিয়েছেন দিবালা। তার ক্লাব জুভেন্তাস চলতি মৌসুমে খাবি খেয়েছে ঘরোয়া ও ইউরোপীয় ফুটবলে। সুযোগ খুব একটা পাননি, তবে যেটুকু পেয়েছিলেন তাতেও দিবালা ছিলেন নিজের ছায়া হয়ে। সবকিছুর মিশেলে আর্জেন্টিনা দলেও হারিয়েছেন জায়গা।

এদিকে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে অ্যাস্টন ভিলার হয়ে দুর্দান্ত এক মৌসুম কাটানো গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ জায়গা পেয়েছেন আর্জেন্টিনা দলে। তবে তার ভাগ্য খুলেছে ফ্রাঙ্কো আরমানির দুর্ভাগ্যে। দল ঘোষণার আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি।

আর্জেন্টিনা দল:
গোলরক্ষক: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ (অ্যাস্টন ভিলা), আগুস্তিন মার্চেসিন (পোর্তো), হুয়ান মুসো (উদিনেস)

ডিফেন্ডার: নিকোলাস টালিয়াফিকো (আয়াক্স), লুকাস মার্টিনেজ কুয়ার্তা (ফিওরেন্তিনা), হুয়ান ফয়েথ (ভিয়ারিয়াল), লিসান্দ্রো মার্টিনেজ (আয়াক্স), নাহুয়েল মোলিনা (উদিনেস), ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো (আতালান্টা), নিকোলাস ওটামেন্দি (বেনফিকা), হোসে লুইস পালোমিনো (আতালান্টা), হেরমান পেজ্জেয়া (ফিওরেন্তিনা)

মিডফিল্ডার: লিয়ান্দ্রো পারেদেস (পিএসজি), গিদো রদ্রিগেস (বেতিস), রদ্রিগো দে পল (উদিনেজে), এসেকিয়েল পালাসিওস (বায়ার লেভারকুসেন), জিওভানি লো সেলসো (টটেনহ্যাম হটস্পার), নিকোলাস ডমিঙ্গেজ (বোলোনিয়া), মার্কোস আকুনা (সেভিয়া), আলেহান্দ্রো পাপু গোমেজ (আতালান্টা), আনহেল ডি মারিয়া (পিএসজি), লুকাস ওক্যাম্পোস (সেভিয়া), এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া (নরউইচ সিটি)

ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি (বার্সেলোনা), সার্জিও আগুয়েরো (ম্যানচেস্টার সিটি), নিকোলাস গঞ্জালেজ (স্টুটগার্ট), হোয়াকিন কোরেয়া (ল্যাজিও), লুকাস আলারিও (বায়ার লেভারকুসেন), লাউতারো মার্টিনেজ (ইন্টার মিলান), আনহেল কোরেয়া (অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ)

 

চস/আজহার

ads here