আজ জাতীয় কবির ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী

150
  |  মঙ্গলবার, আগস্ট ২৭, ২০১৯ |  ১২:১৪ অপরাহ্ণ
ads here

কাজী নজরুল ইসলাম বাংলাদেশের জাতীয় কবি। তিনি ছিলেন বিংশ শতাব্দীর অন্যতম অগ্রণী বাঙালি কবি, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, সঙ্গীতজ্ঞ ও দার্শনিক যিনি বাংলা কাব্যে অগ্রগামী ভূমিকা রাখার পাশাপাশি প্রগতিশীল প্রণোদনার জন্য সর্বাধিক পরিচিত। তিনি বাংলা সাহিত্য, সমাজ ও সংস্কৃতি ক্ষেত্রের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব হিসেবে উল্লেখযোগ্য। বাঙালি মনীষার এক তুঙ্গীয় নিদর্শন নজরুল। তিনি পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ – দুই বাংলাতেই তাঁর কবিতা ও গান সমানভাবে সমাদৃত। তাঁর কবিতায় বিদ্রোহী দৃষ্টিভঙ্গির কারণে তাঁকে বিদ্রোহী কবি নামে আখ্যায়িত করা হয়েছে। তাঁর কবিতার মূল বিষয়বস্তু ছিল মানুষের ওপর মানুষের অত্যাচার এবং সামাজিক অনাচার ও শোষণের বিরুদ্ধে সোচ্চার প্রতিবাদ।
আজ মঙ্গলবার, ১২ ভাদ্র ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী জাতীয় কবির। বাংলা সাহিত্যে তিনি এনেছিলেন নতুন ধারা। ধূমকেতুর মতো আবির্ভূত হয়ে তিনি অভিষিক্ত হয়েছেন মহাপুরুষের আসনে। শোষিত মানুষের মুক্তির জন্য তাঁর সংগ্রাম ছিল আজীবন। সোচ্চার ছিলেন সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার আর কূপমণ্ডূকতার বিরুদ্ধে।
১৩৮৩ বাংলা সনের আজকের এই দিনে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জীবনাবসান হয়। ‘মসজিদেরই পাশে আমায় কবর দিয়ো ভাই’-কবির এ ইচ্ছা স্মরণে রেখে তাঁকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে সমাহিত করা হয়।
কাজী নজরুলের জন্ম ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৩০৬ বঙ্গাব্দে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুরুলিয়া গ্রামে। পিতার নাম কাজী ফকির আহমেদ, মা জাহেদা খাতুন। দরিদ্র পরিবারে জন্মের পর দুঃখ-দারিদ্র্য ছিল তাঁর নিত্যসঙ্গী। তাঁর ডাকনাম ছিল দুখু মিয়া। পিতার অকালমৃত্যুতে পরিবারের ভরণ-পোষণের জন্য তিনি শিশু বয়সেই মক্তবে শিক্ষকতা, হাজি পালোয়ানের মাজারে খাদেম, মসজিদে মুয়াজ্জিনের কাজ করেছেন। নিজের দুঃখ নিয়ে নয়, তিনি জাতির দুঃখ-ক্লেশ-দৈন্য-লজ্জা ঘোচানোর জন্য ভাবতেন সব সময়।
প্রয়াণ দিবসের কর্মসূচি : জাতীয় কবির প্রয়াণ দিবসে আজ সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে জাতীয় কবির সমাধিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হবে। বিকেল ৪টায় বাংলা একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে রয়েছে একক বক্তৃতা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
‘নজরুলের বিদ্রোহ : রাজনীতি, অর্থনীতি ও ধর্মে’ শীর্ষক বক্তব্য দেবেন অধ্যাপক মোহীত উল আলম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। এ ছাড়া বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় স্মরণ করবে কবিকে।

ads here

চস/আজহার

ads here