কিংবদন্তি অভিনেতা খলিলের সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

35
  |  মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২১ |  ২:০৮ অপরাহ্ণ

ঢাকাই সিনেমার এক সময়ের দাপুটে অভিনেতা ছিলেন তিনি। কলিম শরাফী ও জহির রায়হান পরিচালিত ‘সোনার কাজল’ ছবিতে নায়ক হিসেবে রূপালি পথচলা শুরু করেছিলেন। এরপর নায়ক ও খলনায়ক হিসেবে অনেক জনপ্রিয় সিনেমা উপহার দিয়েছেন। ছোট পর্দায় অনেক নাটকেও অভিনয় করে সবার হৃদয়ে নিজের স্থান করে নিয়েছিলেন। মনে পড়ে কিংবদন্তি অভিনেতা খলিলের কথা!

ads here

সেই শক্তিমান অভিনেতা খলিল উল্লাহ খানের সপ্তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৪ সালের ৭ ডিসেম্বর মারা যান তিনি। ১৯৩৪ সালের ১ ফেব্রুয়ারি সিলেটের কুমারপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন খলিল উল্লাহ খান। পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে প্রায় ২ হাজার ৮০০ সিনেমায় অভিনয় করেছেন খলিল। তবে তার অভিনয়ের শুরুটা হয়েছিল টিভি নাটকের মধ্য দিয়ে। ‘গুণ্ডা’ শিরোনামের সিনেমায় অভিনয়ের জন্য তিনি পেয়েছিলেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। এ সিনেমায় তার সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন নায়করাজ রাজ্জাক, আলমগীর ও কবরীসহঅনেকে।

১৯৫৯ সালে ‘সোনার কাজল’ সিনেমায় প্রথম অভিনয় শুরু করেন। এর আগে বেশ কয়েকটি নাটকেও অভিনয় করেন তিনি। খলিল অভিনীত দ্বিতীয় সিনেমা ‘প্রীত না জানে রীত’। সিনেমাটি ১৯৬৩ সালের ১৩ জানুয়ারি মুক্তি পায়। খলিলের তৃতীয় সিনেমা ‘সংগম’।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে- ‘ভাওয়াল সন্ন্যাসী’, ‘ক্যায়সে কঁহু’, ‘জংলি ফুল’, ‘আগুন’, ‘পাগলা রাজা’, ‘মিন্টু আমার নাম’, ‘ওয়াদা’, ‘বিনি সুতার মালা’, ‘বউ কথা কও’, ‘কাজল’ ইত্যাদি। নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সিনেমায় মীরজাফরের চরিত্রে অনবদ্য অভিনয় করে দর্শকের কাছে প্রশংসিত হয়েছিলেন তিনি।

 

 

 

 

চস/আজহার

ads here