spot_img
BETA Version ...
রবিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২৩
নিজস্ব প্রতিবেদক

সর্বশেষ

ভারতের তৃতীয় নাকি অস্ট্রেলিয়ার হেক্সা!

আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১৩তম আসরের ফাইনালে প্যাট কামিন্সের নেতৃত্বাধীন অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন স্বাগতিক ভারত। চলমান বিশ্বকাপে এখনো পর্যন্ত অপরাজিত রয়েছে ভারত। রাউন্ড রবিন পর্বে ৯টি ম্যাচ জেতার পর সেমিফাইনালে কেন উইলিয়ামসনের নেতৃত্বাধীন নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে এক যুগ পর ফাইনালে ওঠার যোগ্যতা অর্জন করে স্বাগতিকরা।

এর আগে ২০০৩ সালের ওডিআই বিশ্বকাপের ফাইনালে সৌরভ গাঙ্গুলির নেতৃত্বাধীন ভারত অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারেনি। ২০২৩ সালের ফাইনালে রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন ভারত সেই হারের বদলা নিতে পারে কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয়।

এদিকে চলতি বিশ্বকাপ আসরের প্রথম পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয় স্বাগতিক ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া। সেই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ৬ উইকেটে হারিয়ে ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করে ভারত। ঐ যে শুরু এখন পর্যন্ত কেউই হারাতে পারেনি স্বাগতিকদের। বলা যায় ঘরের মাঠে অপ্রতিরুদ্ধ ভারত। সেই সঙ্গে ভারতীয় দলের প্রত্যেকটা ক্রিকেটারই রয়েছেন দারুণ ছন্দে। রোহিত, কোহলি থেকে শুরু করে শামি-বুমরাহরা যে কেউ যখন-তখন ঘুরিয়ে দিতে পারে ম্যাচে মোড়।

অপরদিকে ভারতের সঙ্গে নিজেদের প্রথম ম্যাচ হারের পর নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ১৩৪ রানের বড় ব্যবধানে হারে পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপে প্রথম দুই ম্যাচে হারের পর অনেকে-তো আসরে অস্ট্রেলিয়ার শেষ দেখে ফেলেছিল। তবে প্যাট কামিন্সের নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়ায় অজিরা। এরপর নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ৫ উইকেটে হারিয়ে জয়ের ধারায় ফিরে অজিরা। ঐ ম্যাচের পর আর হারের মুখ দেখেনি তারা। মজার বিষয় হচ্ছে যেই দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে প্রথম পর্বে হেরেছিল সেমিফাইনালে সেই দক্ষিণ আফ্রিকাকেই ৩ উইকেটে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে অস্ট্রেলিয়া।

এবার পালা ফাইনালের চলতি ২০২৩ বিশ্বকাপ আসরের ফাইনালে আজ রবিবার আহমাদাবাদের নরেন্দ্র মোদি ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ১ লাখ ৩২ হাজার দর্শকের সামনে স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামবে অস্ট্রেলিয়া। ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলতে মুখিয়ে আছে টিম ইন্ডিয়া। এর আগে এই টুর্নামেন্টে এই দুই দল সর্বশেষ ২০০৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে। সেবার ফাইনালে ভারতকে ১২৫ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে তৃতীয় বারের মতো বিশ্বকাপের শিরোপা জিতেছিল অস্ট্রেলিয়া। সেই ম্যাচে ব্যাট হাতে ১৪০ রানের অপরাজিত এক কালজয়ী ইনিংস খেলেন রিকি পন্টিং। এরপর ২০১৫ সালে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয় অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে। সেই বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ভারতকে ৯৫ রানে হায়ার স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া। সেই বিশ্বকাপে ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপ শিরোপা জিতেছিল অজিরা।

তবে দেশের মাটিতে ভারত যে অজিদের শিরোপা জিততে দিবে না তা অনুমেয়। কেননা এর আগে ২০১১ সালের বিশ্বকাপ আয়োজন করে উপমহাদেশের তিন দেশ বাংলাদেশ-ভারত এবং শ্রীলঙ্কা। সেই বিশ্বকাপের ফাইনালে ঘরের মাটিতে সর্বশেষ মাহেন্দ্র সিং ধোনির হাত ধরে বিশ্বকাপ শিরোপা জিতেছিল ভারত। এরপর পেরিয়ে যায় একযুগ। এই ১২ বছরে কোনো আসরে বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলতে পারেনি ভারত। ২০১৫ এবং ২০১৯ সালের বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল থেকেই শূন্য হাতে দেশে ফিরে রোহিত-কোহলিরা। এবার যে সব হিসাব একেবারেই চুকিয়ে নিচ্ছে তা আসরে তাদের পারফরম্যান্স দেখলেই বলা যায়।

ওয়ানডে ফরম্যাটে এখন পর্যন্ত মোট ১৫০ বার মুখোমুখি হয় অস্ট্রেলিয়া এবং ভারত। সেসব দেখায় জয়ের পাল্লা ভারী অজিদের। অস্ট্রেলিয়ার ৮৩ জয়ের বিপরীতে ভারতের জয় ৫৭টি ম্যাচে। বাকি ১০টি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। এছাড়াও একদিনের বিশ্বকাপ ক্রিকেটে মোট ১৩ বার মুখোমুখি এই দুই দল। এখানেও পরিসংখ্যান কথা বলছে অজিদের পক্ষে। বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার ৮ জয়ের বিপরীতে ভারতের জয় ৫টি ম্যাচে।

কিন্তু ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ হওয়াই এই ম্যাচে ফিভারিট থাকবে স্বাগতিকরাই। সেই সঙ্গে ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপ হওয়ায় গ্যালারি থাকবে স্বাগতিকদের দখলে। তবে এই সব বিষয়ে মাথা ঘামাতে রাজি না অজি অধিনায়ক প্যাট কামিন্স। অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা আমাদের সেরা খেলাটা খেলতে চাই এবং আমরা জানি কীভাবে প্রতিপক্ষের মাঠে চাপ মুক্ত থাকা যায়। আমরা ভারতের মাটিতে আইপিএল খেলেছি, তাই এখানের উইকেট সম্পর্কে আমাদের বেশ ভালো ধারণা আছে।’ তবে দেখার বিষয় আজ বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ২০০৩ বিশ্বকাপের প্রতিশোধ নিতে পারে কিনা ভারত। নাকি ভারতকে হারিয়ে মিশন হেক্সা সম্পূর্ণ করবে অস্ট্রেলিয়া।

চস/স

Latest Posts

spot_imgspot_img

Don't Miss